utsanga
৭ জুন, ২০২০ | ২০:৫০

আহমদ বাসির এর গীতিকাব্য

tesst

প্রার্থনা

আমাদের মননকে করে দিন শুদ্ধ
ভ্রান্তির দ্বারগুলি করে দিন রুদ্ধ ॥

জ্ঞানের কপাটগুলি একে একে খুলে যাক
কর্মমুখর দিন অলসতা ভুলে যাক
শিল্পীত সাধনায় করে যাক যুদ্ধ ॥

প্রকৃত জীবনের বোধোদিত চিত্ত
দান করুন আমাদের ওগো প্রভু নিত্য।

স্বপ্নের সিঁড়িগুলি ধাপে ধাপে উঠে যাক
অভীষ্ট লক্ষ্যের দিকে ওরা ছুটে যাক
সত্যের মহারণে হয়ে উদ্বুদ্ধ ॥

ধৈর্য

মন তুই ধৈর্য ধরে থাক
ব্যথা তোর বুকেই চেপে রাখ
বারে বার আল্লাকে তুই ডাক
পাপ তার ইশকে ধুয়ে যাক ॥

মেওয়া কেউ পায় না জানিস
সবর করা ছাড়া
উথাল-পাথাল মনরে আমার
সেই পথে পা বাড়া
পাবি মধুর মধু চাক ॥

তোর বুকের জ্বালা উঠলে জ্বলে
এই জগৎ পুড়ে পড়বে গলে।

সেই জ্বালা তোর জুড়াবেরে
পরম কোমল ধৈর্যে
ফুল ও ফলে উঠবি হেসে
জীবনের ঐশ্বর্যে
পাবি শান্তি পুতঃ পাক ॥

অরূপ

রূপ ছেড়ে তুই অরূপ ধর
অপূর্ব সেই রূপের ঘর
ওই ঘরে তুই সিজদা কর ॥

বাতাসকে তুই হার মানাবি
আকাশকেও ছেড়ে যাবি
কর্মটা তোর ধর্ম হলে
অথৈ জলেই জাগবে চর ॥

রূপের নেশার ঘোর কেটে যাক
তোর
নইলে তোরে নিঃস্ব করে
ছাড়বে সিঁদেল চোর।

ছাড়িয়ে যাবি সব সীমানা
তোর লাগি নাই কোনো মানা
বুদ্ধিরা তোর খুলবে যখন
চিনবিরে তুই আপন পর ॥

মনের কথা

আমি বসে বসে ভাবি
তোমার কথা
মন তুমি কোন কাজে
ব্যস্ত সদা ॥

তোমার কী মতিগতি
বোঝো না তুমি
কী যে তুমি পাওনি তা
খোঁজো না তুমি
হুঁশিয়ার হবে, না রবে
যথাই তথা?

দিন যদি কেটে যায় জিজ্ঞাসাহীন
তুমি তো রবে না হবে বাতিলে বিলীন।

নিজেকে নিজের করে
পাও না তুমি
কেননা গভীর করে
চাও না তুমি
তাই এই বুকে বড়
বাজছে ব্যথা ॥

প্রেমের বাজার

যাক কেটে যাক এই জড়তা
বন্ধ্যা এসব লগ্ন
নতুন গানের নতুন সুরে
আবার হবো মগ্ন ॥

প্রাণহারা এই ঘোর অবেলা
থাকবে না আর বসবে মেলা
প্রেমের বাজার খুলবে এবার
জুড়বে হৃদয় ভগ্ন ॥

শিখবো যখন বাঁচতে ও-মন
আলোর তরঙ্গে
ঘটবে পরিচয় সে আসল
জীবনের সঙ্গে।

সৃষ্টিমুখর দৃষ্টি তখন
খুলবে প্রাণের নতুন ভুবন
হবেই জীবন সত্য এবং
সুন্দরে সংলগ্ন ॥

বদরুসমের বালাই

বদলে ফেল বদরুসমের বালাই
বুদ্ধি বিবেক নতুন করো ঝালাই ॥

দৃষ্টি আরো তীক্ষ্ণ করে দেখো
সত্য যাচাই বাছাই করা শেখো
তোমার ভয়ে
ভ্রান্ত রীতি নীতিরা যাক পালাই ॥

সামনে চলার পদ্ধতি নাও জেনে
কষ্ট কঠিন পথগুলি নাও মেনে।

শপথ বুকে খোদাই করে রাখো
স্বপ্নকে এই বাস্তবতায় মাখো
কু-প্রথারা
নিক খুঁজে পথ আবর্জনার নালাই ॥

অবশেষে

আয়েশের দিন শেষ
পায়েশের দিন শেষ
হয়ে গেছে কবে
তবু আজো আয়েশে
ডুবে আছি পায়েশে
বসবাসও খ’বে ॥

এভাবে কি মুক্তিরা আসবে
সত্তের উক্তিরা হাসবে
নাকি আরো ধীরে ধীরে
কতো কিছু নাশবে
জিজ্ঞাসা জাগে না
পিছনে ও আগে না
কীযে বলো হবে?

আমাদের বোধোদয় ঘটবে নাকি
এখনো অনেক পথ হাঁটতে বাকী ?

কেনো এতো পিছে পড়ে থাকছি
অন্তরে হাহাকার আঁকছি
নাকি ভুলে নিজেদের
পতনকে ডাকছি
প্রশ্ন কে তুলবে
জটাজাল খুলবে
অবশেষে তবে?

বিরহ

কার বিরহে কাঁদোরে মন
কার মিলনে হাসো
কাকে তুমি আপন করে
সবচে ভালবাসো ॥

কার প্রেমের এই জ্বরের ঘোরে
অন্ধ তুমি
কার কাছে এই মন রেখেছ
বন্ধ তুমি
নিত্য তুমি কাঙাল হয়ে
কার দুয়ারে আসো ॥

হায়রে আমার মন তুমি কার
কে যে তোমার হলো
কার তরে মন দুয়ার তোমার
অহর্নিশি খোলো

কার হয়েছো কাব্যকথার
ছন্দ তুমি
কার হয়েছ ফুলের মতো
গন্ধ তুমি
স্বপ্নে তুমি সঙ্গী হয়ে
কার পালকে ভাসো?

ভাবনাকে

ভাবনাকে আরও দূরে প্রসারিত করো
চোখের সমুখে আলো উঁচু করে ধরো ॥

জ্ঞানের সীমানা খুলে বুদ্ধির
গান গাও প্রাণ খুলে শুদ্ধির
অন্তরে প্রোজ্জ্বল পোশাকটা পরো ॥

ভাবনারা তোমাকে কি ভাবনায় ফেলে না
অন্তরে বাসন্তী পল্লব মেলে না ?

আত্মার আরাধনা মুক্তির
আল্লার সাথে সেই চুক্তির
কথাটা স্মরণ করে জীবনকে গড়ো ॥

ফুলের কাঁটা

প্রেমের কতো স্তর আছে
বুঝিস না মন
গভীর থেকে গভীরতর
প্রেমেই মরণ
হলে তাতে হবে তোর
জীবন বরণ ॥

প্রেমে যারা সুধারস পায়নি
আসলে সে পথেই তারা যায় নি
হৃদয়ের পাত্রে তা
করেনি ধারণ ॥

প্রেম শুধু ফুলে ফুলে হয় না
এ ফুলের কাঁটা সবে সয় না।

সবর সবক যে আদৌ নেয়নি
মরণের পথে আজো পথ দেয়নি
প্রেমই তার শতভাগ
করতে বারণ ॥

বিষয়সমূহঃTags:

পূর্বের সংবাদ

«

পরের সংবাদ

»