মানসুর মুজাম্মিল
২৯ মার্চ, ২০২০ | ১৯:১৩

মানসুর মুজাম্মিল’র ছড়া

tesst

তোমার জনম

তোমার জনম
নকশিকাঁথা মাঠের দেশে
তোমার জনম ধান রাই আর পাটের দেশে |
তোমার জনম
ফুলের-ফলের পাখির গাঁয়ে
তোমার জনম শিমুল-পলাশ গাছের ছায়ে |
তোমার জনম
বৃষ্টি-ঝরা উঠোন ‘পরে
তোমার জনম মায়ের আদর মাখা ঘরে |
তোমার জনম
রি রি করা শীতের মাঝে
তোমার জনম জোসনামাখা রাতের ভাঁজে |
তোমার জনম
সুখের-দুখের নদীর বুকে
তোমার জনম যুদ্ধ-স্বাধীনতার মুখে ।

পশুবাহী

তার কাঁধে ভর করে
পশু এক বন্য
সেই পশু নিয়ে তিনি হয়ে যান ধন্য ।
তিনি যতো ভালো খানা
রোজ রোজ খান
পশুকেই বেশি দিতে তার ছিলো টান ।
তার কাছে ছিলো খুব
পশুটাই ভালো
মিছে ছিলো তার কাছে সূর্যের আলো ।
বুকে তার বাস ছিলো
পশুটার নৃত্য
হাসি খুশি থাকতো যে তার পশু-চিত্ত ।
তাকে সবে দাম দেয়
পশুটার জন্য
পশুটাই তাকে দিতো বাঁচবার অন্ন ।
পশুবত্ মন নিয়ে
সেই লোক মরলো
জানিনা যে বিধাতা তাকে কী যে করলো !

বয়স যখন

বয়স যখন এক
মা বলতো পৃথিবীতে
কান্না করা শেখ

বয়স যখন দুই
বাবার নরোম মিষ্টি কোলে
মজা করে শুই

বয়স যখন তিন
হেসে খেলে কেটে যেতো
আমার রঙীন দিন

বয়স যখন চার
আমি তখন কোথায় উধাও-
হয়তো পগার পার

বয়স যখন পাঁচ
হাতড়ে পুকুর ধরতাম কতো
লাফিয়ে চলা মাছ

বয়স যখন ছয়
আমি তখন বুঝেছিলাম-
জীবন মানে জয়

বয়স যখন সাত
গল্প করে কাটিয়ে দিতাম
চাঁদ-জোনাকি রাত

বয়স যখন আট
মায়ের কাছে শিখেছিলাম
ভালবাসার পাঠ

বয়স যখন নয়
দুষ্টু বলে পরিচিত
সারা পাড়াময়

বয়স যখন দশ
মা আমাকে বলেছিলেন
জগত-খ্যাত হস্।

আহার

চাই ভালো খানা খেতে
চাই পরিচ্ছন্ন
কী আরাম কী আরাম সৎ কাজের অন্ন !

হাত ধুয়ে খানা খাই
খানা খেয়ে ধুই
পরিমিত খানা খেয়ে পরিমিত শুই।

খেতে নেই পচা-বাসি
খেতে নেই বেশি
বেশি খেলে অযথাই হবে রেষারেষি।

ছোট মাছ খুব ভালো
খেতে হবে তাজা
ঝাল, নুন বেশি খেলে পেট দেবে সাজা।

তেল যতো কম হবে
বডি হবে খুশি
পেট মোটা হয়ে গেলে ভাবে সবে দোষী।

বাহারি আহার নয়
প্রয়োজন যতো
খেতে হবে ঠিক ঠিক ফকিরের মতো।

বলছি আমি

বলছি আমি
সাহসী এক কবির কথা-
ভেঙে দিলেন নীরবতা

বলছি আমি
দুঃখজয়ী পাখির কথা
ভেঙে দিলেন
সকল প্রথা

বলছি আমি
নদীর বেদন
এখন প্রিয় সবার সে জন।

জননেতা
বঙ্গ নেতা
আমরা পেলাম স্বাধীনতা।

ফিরে পাবে না

বাড়ি ফিরে পাবে
গাড়ি ফিরে পাবে

টাকা ফিরে পাবে
চাকরি ফিরে পাবে

ছেলে ফিরে পাবে
মেয়ে ফিরে পাবে
স্ত্রী ফিরে পাবে

পদ ফিরে পাবে
পথ ফিরে পাবে
নদী ফিরে পাবে
গদি ফিরে পাবে

ফিরে পাবে না
শ্বাস
যখন তুমি
লাশ।

গন্ধ ছড়া’র লোক
রাত গড়িয়ে দিন
দিন গড়িয়ে রাত
কোথায় আমার পা চলে গো
কোথায় চলে হাত ?

কোথা থেকে এলাম আমি
কোথায় যাবো কাল
জানিনা গো কতো বছর
আমার বাঁচার সাল ।
কোথায় আমার মুখ চলে গো
কোথায় পড়ে চোখ
আমি কী গো সত্যিকারের
গন্ধ ছড়া’র লোক?

বিষয়সমূহঃTags: