শিকদার মোস্তফা
৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ১৫:৪৮

শিকদার মোস্তফা’র ছড়া

tesst

উজবুকে ফেসবুকে
উজবুকে ফেসবুকে একাউন্ট খুইল্লা
একদম গেল হায় নাওয়া-খাওয়া ভুইল্লা।
আপলোড করে ছবি পোজ দিয়ে বাইকে
চোখ তার মোবাইলে, মন শুধু লাইকে।
বেতন না দিয়ে হায় দিতে গেল রেল ফি
রেলে চড়ে তুলল সে তাংফাং সেলফি।
আগে ওর মন ছিল বল খেলা ব্যাটিংয়ে
টাইম পাস করে আজ কমেন্ট ও চ্যাটিংয়ে।
আগে ওর ছিল মন খেলা বই-খাতাতে
আজ শুধু মনোযোগ ফেসবুক মাতাতে।
স্মার্ট ফোনে চোখ, মন নাই ক্যালাশে
ইজি কাজে বিজি আজ-ইবলিশ চ্যালা সে।
অবশেষে ম্যাট্রিকে মারল সে ডাব্বা
দুই জোড়া বেত দিয়ে পিটাল তার আব্বা।

ডর লাগে
ডর লাগে এই দেশে আইতে ও যাইতে
ডর লাগে সর্বদা দিনে আর রাইতে।
ডর লাগে গলা ছেড়ে জোরে গান গাইতে
ডর লাগে ফিনতে ও ভালো কিছু খাইতে।
ডর লাগে খোলা মনে হক কথা বলতে
না জানি কে আসে তেড়ে এ শরীর ডলতে।
একশত ভাগ সহি এই মুখে বলি যা
ডরে কাঁপে চান্দি ও হাড়-গোড় কলিজা।
পুলিশেরে যদি বলি, আমি ভাই ডরগিয়া
ধমকে সে বলে হয়, ভাগ ব্যাটা মর গিয়া।
ডর লাগে কত কিছু, ডর লাগে বিবিরে
গালে হাত দিয়ে ভাবি চলে যাবো নিবিড়ে।
ডর লাগে সবখানে এমন কি সেলুনে
তাই মাটি ছেড়ে যাবো গ্যাস ভরে বেলুনে।

ক্রেতা
দিনে আনি দিনে খাই,
কম করে কিনে খাই,
স্বচ্ছল হালও নাই,
মনটাও ভালো নাই।
এক কেজি চাল দেন,
আধা-পোয়া ডাল দেন,
এক শিশি তেল দেন,
মিনিপ্যাক জেল দেন।
এক তোলা জিরা দেন,
দুইশত চিড়া দেন,
আড়াই’শ আদা দেন,
মিনি-সোপ সাদা দেন।
আধা কেজি নুন দেন,
এতোটুকু চুন দেন,
এক হালি পান দেন,
সব কিছু বান্ধেন।
এতো বেশি দাম ক্যান?
দাম শুনে ঘাম ক্যান?
মাথাটায় জল দেন,
ডাক্তারে কল দেন।

হাওয়া
হাওয়া খাওয়া লোক আছে আছে লোক পাম্পার;
হাওয়া দিয়ে কিছু লোক দান মারে বাম্পার।
সভাপতি, আলোচক করে হাওয়া বিনিময়;
চরিত্র এইভাবে হয় ছিনিমিনিময়।
কেউ বড় হতে চায় হাওয়া দিয়ে দিন-রাত;
ফল পেতে একটানা হাওয়া দেয় তিন রাত।
কিছু লোক হাওয়া না-ই পেলে হয় রুদ্র;
এইসব লোকগুলো বাস্তবে ক্ষুদ্র।
হাওয়া খায় জ্ঞানপাপী আর খায় বিয়াকুব;
এই দলে কুতুব আলী, মিস্টার ইয়াকুব।
শোনো আমি ঘৃণা করি হাওয়া খাওয়া কর্ম;
কেউ আমারে হাওয়া দিলে তুলে নেবো চর্ম।

ফুটপাত
ফুটপাতে ঘোরে কিছু বাটপার লম্পট
টাকা-টুকা মেরে দিয়ে দেয় চামে চম্পট।
ফুটপাতে ঘুম যায় ফুটপাতে জাগে
অসহায় মানুষেরা মোতে আর হাগে।
ফুটপাত মহা এক ঔষধ ভান্ডার
কেউ বেচে বড়ি-টরি, কেউ তেল ডান্ডার।
ফুটপাতে বেচাকেনা! হায়রে কী করবি?
হাঁটলেই মাঠা হয় পেছনের চর্বি।
ফুটপাতে হাঁটা দায় গু-মুতের গন্ধে
সমাজ না জঙ্গল থাকি এই দ্বন্দ্বে।
আরো বলি ফুটপাত ভরা খানা-খন্দে
হাঁটলেও অহরহ ছেঁদ পড়ে ছন্দে।
ফুটপাত দেখে শোন্ চেনা যায় মুল্লুক
সেই দেশে বেশি কারা মানুষ না উল্লুক।
আর কতো দেখবো এ হনুমান রঙ্গ
চাঁদে ঠিক চলে যাবো পাই যদি চঙ্গ।

বিষয়সমূহঃTags:

পূর্বের সংবাদ

«